কুচকিতে চুলকানির সমাধান | চুলকানির ঔষধের নাম | চুলকানি দূর করার সহজ উপায় জেনে নিন

কুচকিতে চুলকানির সমাধান,চুলকানির ঔষধের নাম,চুলকানি দূর করার সহজ উপায়,চুলকানির লোশন,চুলকানির মলম,চুলকানির ওষুধ,চুলকানির ওষুধ নাম।

কুচকিতে চুলকানির সমাধান,চুলকানির ঔষধের নাম,চুলকানি দূর করার সহজ উপায়- জানার জন্য যারা আমাদের ওয়েবসাইটে আসছেন আপনাদের সবাইকে জানাচ্ছি আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। চুলকানি হলো খুব বিরক্তিকর একটি কাজ। চুলকানি মাঝে মাঝে এমন অস্বস্তিকর পরিস্থিতিতে ফেলে দেয় যেখানে মানুষের সামনে লোকলজ্জায় পড়তে হয় এবং যেটা মুখে বলা কোন সময় সম্ভব হয়না। যদি আপনার শরীরে কোন এক জায়গায় চুলকানি থাকে সেই চুলকানিটা আপনার সারা শরীরে ছড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এমনকি এই রোগটি আপনার শরীর থেকে অনেক সময় অন্যের শরীরে ছড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আজ আপনাদের কাছে শেয়ার করবো চুলকানি দূর করার উপায়

    কুচকিতে চুলকানির সমাধান

    কুচকিতে চুলকানির সমাধান অনলাইনে খোজাখুজি করেন না এমন মানুষ খুব কমই পাওয়া যায়। এই চুলকানি অনেক সময় শরীরের এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। যার চুলকানি আছে সেই ব্যক্তির পোশাক পানি বিছানা ইত্যাদি এর বাহক হিসেবে কাজ করে থাকে। চুলকানি বেশিরভাগ দুই রানের মাঝখানে বেশি হয়ে থাকে। আর এই চুলকানি রোগের বেশিরভাগ আক্রান্তের মধ্যে সবথেকে বেশি হলো পুরুষের সংখ্যা।

    • কুচকিতে চুলকানি রোগের লক্ষণ
    • দুই উরুর মাঝখানে তীব্র চুলকানি অনুভূতি হওয়া।
    • আপনার গায়ে খয়রি বা লাল রঙের পানি ভর্তি ফুসকুড়ি বেশি বেশি দেখা দেওয়া।
    • চুলকানোর পর পানি ভর্তি ওই ফুসকুড়ি গুলো ফেটে পানি বের হয়ে যাওয়া।
    • যেখানে চুলকানো হয় সেই জায়গায় পানি পড়ার সাথে সাথে প্রচন্ড জ্বালাপোড়া সৃষ্টি হওয়া।
    • চুলকানি জায়গায় কাল এবং শুষ্ক দেখা যাওয়া।

    চুলকানি দূর করার সহজ উপায়

    এন্টিসেপটিক সাবান ব্যবহার করা। আপনার যে জায়গায় চুলকানি বা ফুসকুড়ি হয়েছে ওই স্থানটি প্রতিদিন পরিষ্কার করতে হবে। কোন সময় ওই জায়গাটা অপরিষ্কার রাখা যাবে না। প্রতিদিন গোসলের সময় অ্যান্টিসেপটিক লিকুইড অথবা এন্টিসেপটিক সাবান ব্যবহার করে খুব ভালোভাবে ধুয়ে ফেলতে হবে। একটি জিনিষ খেয়াল রাখতে হবে যে আপনি যে সাবান টি ব্যবহার করেছেন ওই সাবান টি যেন অন্য কোন মানুষ ব্যবহার না করে। যদি অন্য কেউ ব্যবহার করে তাহলে তারও এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

    ক্ষতিকর অভ্যাস যখন আপনার শরীর চুলকাবে তখন আপনি চেষ্টা করবেন নিজে না চুলকিয়ে থাকার জন্য। কারণ আপনি যত চুলকাবে ততই আপনার শরীরের বিভিন্ন স্থানে এই রোগটি ছড়িয়ে পড়বে। এছাড়াও এটি আপনার সব সময়ের একটি অভ্যাস হয়ে যাবে। তখন পরবর্তীতে আপনি না চাইলেও অনেক বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে যেতে হবে আপনাকে।

    টয়লেট ব্যবহারের পর করণীয় আপনার যে জায়গায় চুলকানি আছে ওই জায়গাটি সবসময় শুকনা রাখার চেষ্টা করবেন। আপনি যতবার টয়লেট ব্যবহার করবেন ততবারি ভালো করে সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার করে নিবেন। যেখানে আপনার চুলকানি আছে ওই জায়গাটা পরিষ্কার কোন কাপড় দিয়ে সুন্দর ভাবে পরিষ্কার করে নেবেন দাতেয়া ওখানে আর পানি না থাকে সুস্থ লাগে।

    চুলকানি থাকা অবস্থায় আপনার যেসব বিশ্লেষণ ওইসব বিছানাপত্র আলাদা করে রাখুন। চুলকানি ছেড়ে গেলে আপনার বিছানাপত্র আপনার জামাকাপড় এন্টিসেপটিক অথবা জীবানুনাশক কোন লিকুইড দিয়ে ভালো করে পরিষ্কার করে নিবেন। যদি পারেন গরম পানি দিয়ে ধুয়ে রোদে শুকিয়ে নেবেন যাতে আর অন্য কেউ আক্রান্ত না হতে পারে।

    কুচকিতে চুলকানি হলে আপনি চেষ্টা করবেন সবসময় ঢোলা ঢোলা পোশাক পরিধান করতেন। আপনি যত টাইট পোশাক পরিধান করবেন ততই আপনার চুলকুনি আরো বেশি বাজে থাকবে।

    চুলকানির ঔষধের নাম 

    চুলকানির ঔষধের নাম হলো এন্টিফাঙ্গাল ক্রিম। আপনি এই ক্রিমটা আপনার যেখানে ক্ষত জায়গায় আছে ওইখানে ব্যবহার করতে পারেন। এই ক্রিমটা আপনি যে কোন ফার্মেসিতে পেয়ে যাবেন। একটি হলো 30 গ্রাম এবং অপরটি হলো 50 গ্রাম। 30 গ্রামের দাম 40 টাকা এবং 50 গ্রামের দাম 60 টাকা। আপনি বাংলাদেশের যে কোন ফার্মেসিতে থেকে এই ওষুধ করে আয় করতে পারবেন কোনরকম প্রেসক্রিপশন ছাড়াই 

    কুচকিতে চুলকানির সমাধান,চুলকানির ঔষধের নাম,চুলকানি দূর করার সহজ উপায়,চুলকানির লোশন,চুলকানির মলম,চুলকানির ওষুধ,চুলকানির ওষুধ নাম।

    কুচকিতে চুলকানির সমাধান,চুলকানির ঔষধের নাম,চুলকানি দূর করার সহজ উপায় জানতে পেরেছেন। আপনাদের সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের আজকের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ করার জন্য। আপনি চাইলে আমাদের এই ওয়েবসাইটটি আপনার ব্রাউজারে বুকমার্ক করে রাখতে পারেন। তাহলে আপনি যেকোন সময় আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করতে পারবেন।

    Next Post Previous Post
    No Comment
    Add Comment
    comment url